হকারমুক্ত শহর গড়লেন পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ

স্টাফ রিপোর্টার(নিউজ বন্দর ২৪) : নারায়নগঞ্জ শহর হকারমুক্ত করতে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আইভী না পারলেও হকারমুক্ত শহর গড়লেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ।
তার নির্দেশে ২ শতাধিক পুলিশ চাষাড়া হতে মন্ডলপাড়া পুল পর্যন্ত হকার মুক্ত শহর গড়তে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হয়।
শুধু হকার নয় বিভিন্ন মার্কেটের দোকানদাররা সামনে মালামাল সাজিয়ে রেখে ফুটপাত দখল করেছিল তা অপসারন করতে সময় বেঁধে দেন।
এ সময় শতশত পথচারী উচ্ছেদ অভিযানকে স্বাগত জানান।
জানা যায়,সিটি কর্পোরেশনের কতিপয় কর্মকর্তা / কর্মচারী ও স্থানীয় এক সংসদ সদস্যের কতিপয় অনুগামী অবৈধ সুযোগ নিয়ে হকারদের ফুটপাতে অবাধে বসার সুযোগ দেয়। নাসিক ও ঐ এমপি হকারমুক্ত শহর উপহার দেয়ার পরিবর্তে হকার যুক্ত শহর উপহার দেয়ায় পথচারীদের কে ঝুঁকি নিয়ে পথ চলতে হতো।
শনিবার (১৫ জুন) সকাল সাড়ে ১১ টা হতে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত হকার উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হয়।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মনিরুল ইসলাম, সুবাস চন্দ্র সাহা,সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ কামরুল ইসলাম, ডিআইও-২ সাজ্জাদ রোমনের নেতৃত্বে অভিযান পরিচালিত হয়।দুপুর ১ টায় পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ বিপিএম বার পিপিএম বার অভিযানে এসে যোগ দেন এবং২ নংরেল গেইট হতে মন্ডলপাড়া ও বাসষ্ট্যান্ডে অভিযান পরিচালনা করে চাষাড়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এসে প্রেস ব্রিফিং এর মাধ্যমে অভিযানের সমাপ্তি ঘোষণা করেন।
এ সময় সাংবাদিকদের বলেন,নারায়ণগঞ্জ বাসী সুন্দর ও পরিচ্ছন্ন ভাবে ফুটপাতে চলতে পারে সে ব্যবস্থা করা আমাদের কাজ।ঈদে সবগুলো ঈদগাহে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নিয়েছি।পুলিশের ছুটি বাতিল করেছি।মাদক ব্যবসায়ীদের ধরছি তবে রাঘব বোয়ালদের ধরতে পারিনি।ব্যক্তি স্বার্থে যেন কোন হকার বসতে না পারে। পুলিশ হকারদের বিরুদ্ধে নয়। ২৪ জুন হতে পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগ পরীক্ষা চলবে অসাধু দালাল,মিডিয়াচক্র যেন কোন টাকা না নিতে পারে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।মেধা ও স্বচ্ছতার ভিক্তিতে চাকুরী পাবে।একটাকা খরচ করতে হবেনা।বিনা পয়সায় চাকুরী পাবে।

ভূমিদস্যু,মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে যে কেউ মামলা করতে পারবেন।কোন প্রভাবশালী ব্যক্তি জুয়ার আসর বসায় কিনা সেদিকে খেয়াল রাখতে আহবান জানান পুলিশ সুপার।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: