সোনারগায়ে ২ সন্তানের জননীকে পালাক্রমে ধর্ষণ,হত্যার চেষ্টা

সোনারগাঁ প্রতিনিধি : নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে সনমান্দিতে প্রবাসীর স্ত্রীকে পালাক্রমে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত বৃহস্পতিবার রাতে ইমানেরকান্দি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ধর্ষিতা বাদী হয়ে ছালাউদ্দিন (২৪) ও আনোয়ার হোসেন (৩২) কে আসামী করে সোনারগাঁ থানায় মামলা দায়ের করেছে। পুলিশ শনিবার রাতে অভিযান চালিয়ে ধর্ষক আনোয়ার হোসেনকে আটক করেছে।

ধর্ষক ছালাউদ্দিন সনমান্দী ইউনিয়নের ইমানেরকান্দী গ্রামের সামসুল হক মিয়ার ছেলে ও আনোয়ার হোসেন একই এলাকার সিরাজুল ইসলামের ছেলে।

মামলার এজাহারে উল্লেখ, উপজেলার সনমান্দি ইউনিয়নের ইমানেরকান্দি গ্রামে প্রবাসীর স্ত্রী তার ২ কন্যা সন্তান নিয়ে বাবার বাড়িতে বসবাস করে আসছে। গত বৃহস্পতিবার রাতে গৃহবধূ তার প্রবাসে থাকা স্বামীর সাথে মোবাইল ফোনে (ইমুতে) কথা বলতে ঘরের বাহিরে যায়। এ সময় আগে থেকে ওৎপেতে থাকা ছালাউদ্দিন ও আনোয়ার হোসেন গৃহবধূকে মুখে গামছা পেচিয়ে জোড়পূর্বক বাড়ীর পাশের একটি নির্জন ক্ষেতে নিয়ে গৃহবধূকে তাদের সাথে দৈহিক মিলনের প্রস্তাব দেয়। এতে গৃহবধূ রাজি না হওয়ায় জোড়পূর্বক তাকে শারীরিক নির্যাতন ( মারধর) করেন। এক পর্যায়ে তাকে মাটিতে ফেলে দেয় এবং অপরজন বুকের উপরে বসে তার মুখের ভিতরে  চুল গুজে দিয়ে শ্বাসরোধ করে। পরে তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে এবং হত্যার চেষ্টা করে। এদিকে দীর্ঘক্ষন অতিবাহিত হওয়ার পর প্রবাসীর স্ত্রী ঘরে না আসায় তার মা বাহিরে তাকে খুঁজতে আসে। শব্দ শুনে ধর্ষক ২জন পালিয়ে যায়। এদিকে গৃহবধূকে না পেয়ে তার মা তাকে ডাকে ও খুজতে থাকে। পরে পাশের জমিতে এগিয়ে গেলে ধর্ষণকারীরা পালিয়ে যায়।  আহত প্রবাসীর স্ত্রীকে উদ্ধার করে ঢাকার একটি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয়রা উত্তেজিত হয়ে ধর্ষকদের বাড়ি ঘর ভাংচুর করে।

এ ঘটনায় গৃহবধূ বাদি হয়ে শনিবার রাতে সোনারগাঁ থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

সোনারগাঁও থানার অফিসার ইনচার্জ মনিরুজ্জামান বলেন, ধর্ষণের ঘটনায় ধর্ষিতা বাদি হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। এ ঘটনায় আনোয়ার নামের একজনকে আটক করা হয়েছে আরেক জন আসামী ছালাউদ্দিন পালাতক রয়েছে , আমরা তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চালাছি।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: