সোনারগাঁয়ে ল্যাপটপ ও ঈদ সামগ্রী নিয়ে প্রতিবন্ধী কলেজ ছাত্রীর বাড়িতে এমপি খোকা

সোনারগাঁ প্রতিনিধি : নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলায় রিনা আক্তার নামে এক অসহায় পিতৃহারা শারীরিক প্রতিবন্ধী ও মেধাবী কলেজ ছাত্রীর বাড়িতে ল্যাপটপ ও ঈদ সামগ্রী নিয়ে উপস্থিত হয়ে আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা। গতকাল রবিবার দুপুরে তিনি আকষ্মিক বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়নের আনন্দবাজার এলাকায় রিনা আক্তারের বাড়িতে এসময় সামগ্রী নিয়ে উপস্থিত হন। এসময় রিনা আক্তারের আত্মীয়স্বজন ও গ্রামবাসী অশ্রুসিক্ত নয়নে সাংসদ খোকাকে অভিনন্দন জানায়।
জানা গেছে, উপজেলার আনন্দবাজার এলাকার মৃত আব্দুস সোবহানের চার সন্তানের মধ্যে মেঝ সন্তান রিনা আক্তার। জন্মগত শারীরিক প্রতিবন্ধী রিনা আক্তার এ বছর সোনারগাঁ কাজী ফজলুল হক উইমেন্স কলেজ থেকে কমার্স বিভাগে এইচএসসি পরীক্ষা দিয়েছে। সম্প্রতি এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা এই অসহায় মেধাবী শিক্ষার্থীর মায়ের কোলে চড়ে কলেজে আসা যাওয়া ও পরীক্ষায় অংশগ্রহণের খবর জানতে পারেন। পরে রবিবার দুপুরে তিনি রিনা আক্তারের জন্য একটি এইচ পি ব্যান্ডের দামি ল্যাপটপ, ঈদুল ফিতর উপলক্ষে নতুন জামা কাপড়, মায়ের জন্য শাড়ি, সেমাই, চিনি, তেল ও সোনারগাঁয়ের সুস্বাদু লিচু সহ বিভিন্ন ঈদ সামগ্রী নিয়ে তার বাড়িতে হাজির হন। এসময় আকষ্মিক সংসদ সদস্যকে দেখে রিনা আক্তার, তার আত্মীয়স্বজন ও গ্রামবাসীর মাঝে আলোড়ন সৃষ্টি হয়।
এ প্রসঙ্গে এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা বলেন, শারীরিক প্রতিবন্ধী হয়েও রিনা যেভাবে কষ্ট করে লেখাপড়া করছে এতে আমি তাকে নিয়ে গর্ববোধ করি। রিনাকে কেউ যেন পিতৃহারা না বলে। আজ থেকে লিয়াকত হোসেন খোকা তার বাবা ও ডালিয়া তার মা। সে যতদূর লেখাপড়া করতে চায় আমি তাকে পড়াবো। তার সম্পূর্ণ দায়দায়িত্ব আমার।
এমপি খোকা আরো বলেন, শুধু রিনা আক্তারই নয়। বরং সোনারগাঁয়ে যত প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থী রয়েছে আমি তাদের পাশে আছি। আমরা সবাই এক সঙ্গে এবারের ঈদুল ফিতর উদযাপন করবো ইনশাআল্লাহ।
অনুভূতি প্রকাশ করতে যেয়ে প্রতিবন্ধী রিনা আক্তার বলেন, এমপি সাহেব এভাবে আমাদের বাড়িতে ল্যাপটপ ও ঈদ সামগ্রী নিয়ে আসবেন তা আমরা কল্পনাও করতে পারিনি। আমার যে একটা ল্যাপটপের শখ ছিলো তা তিনি কিভাবে জেনেছেন তাও আমার জানা নেই। তিনি সোনারগাঁয়ের গর্ব। আমরা মন থেকে তার জন্য দোয়া করি।
এসময় উপস্থিত সোনারগাঁ থানার এসআই আবুল কালাম আজাদ বলেন, এমপি সাহেব আজ এক ইতিহাস রচনা করেছেন। যা তাকে আজীবন স্মরণীয় করে রাখবে।
বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়নের মেম্বার আইয়ুব আলী, আব্দুল বাসেত ও মোহাম্মদ আলী জানান, এমপি সাহেব এসেছেন শুনে আমরা এখানে ছুটে এসেছি। তিনি আজ মহানুভবতার যে দৃষ্টান্ত গড়লেন সোনারগাঁয়ের ইতিহাসে তা এক বিরল ঘটনা। আমরা সহ দেশের প্রত্যেক জনপ্রতিনিধির উচিৎ তার থেকে শিক্ষা গ্রহণ করা।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: