সোনারগাঁয়ে ভন্ড কবিরাজের প্রতারণায় হাজারো নারী-পুরুষ দিশেহারা

সোনারগাঁ প্রতিনিধি : নারায়নণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলার আষাঢ়িয়ারচর গ্রামের সোনা মিয়া বেপারীর ছেলে ভন্ড কবিরাজ মহসিন দয়াল (৩২) দীর্ঘদিন যাবত চিকিৎসার নামে মানুষকে প্রতারিত করে ঝাড় ফুঁক আর তাবিজ দিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে হাজার হাজার টাকা। সর্ব রোগের চিকিৎসা দেয়া হয় ও তার কাছে জ্বীন আছে এই বলে সে মানুষকে প্রতারিত করছে।

সরেজমিনে গিয়ে বেরিয়ে এসেছে কবিরাজের ভন্ডামির তথ্য। প্রতিবেশী মারফত আলীর ছেলে মাতু মিয়া (৩৮) অভিযোগ করে বলেন, গত মার্চ মাসে তার বিবাহিতা স্ত্রী শিউলী বেগম (৩৫) রহস্যজনকভাবে তার দেয়া ৪ ভরি স্বর্ণালংকার ও নগদ ২লক্ষ টাকাসহ ভন্ড কবিরাজ মহসিনের বাড়িতে আত্মগোপন করে। খবর পেয়ে তার শিউলীকে আনতে গেলে ভন্ড কবিরাজ মহসিন ও তার সহযোগীরা মাতু মিয়াকে শারীরিক নির্যাতন করে। ভন্ড কবিরাজ মহসিন ও তার পালিত সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ, পুলিশের ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি, নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপারের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন বলেও জানান।

এলাকাবাসী জানায় দীর্ঘদিন যাবত ভন্ড কবিরাজ মহসিন বিভিন্ন ভাবে সাধারণ মানুষকে রোগ মুক্তির নামে প্রতারিত করে আসছে। মূলত তার কু-পরামর্শেই মাতু মিয়ার স্ত্রী শিউলী তার স্বামীর দেয়া স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকা নিয়ে পালিয়ে মহসিনের বাড়িতে আশ্রয় নেয়। যাদুটোনা, অবলা নারীদের গোপন সমস্যার স্থায়ী সমাধান, সম্পদ ফিরে পাওয়ার আশ্বাস দিয়ে মানুষদেরকে প্রতারিত করে আসছে।
স্থানীয় লোকজনের অভিযোগের প্রেক্ষিতে কবিরাজ মহসিনের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় কয়েক জায়গায় লাল কাপড় বিছিয়ে খালি লেভেল বিহীন প্লাষ্টিক বোতল নিয়ে অপরিছন্ন অবস্থায় বিভিন্ন ফলমূল নিয়ে রোগ থেকে মুক্ত করতে তার কাছে আগত কয়েকজন নারীকে ফুঁ দিচ্ছেন। নেই কোন ডাক্তারী যন্ত্রপাতি, নেই কোন ট্রেড কিংবা কবিরাজির লাইসেন্স, শিক্ষা দিক্ষায় নেই কোন সার্টিফিকেট, নেই কোন কবিরাজি বই পত্র, শুধু জ্বীন আছে এবং জ্বীন দ্বারা চিকিৎসা সেবা দেয়া হয় বলে মানুষজনকে বিভ্রান্ত করে দূর দূরান্ত থেকে আসা অসহায় নারী-পুরুষের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে প্রতিদিন হাজার হাজার টাকা।

ভন্ড কবিরাজ মহসিন দয়ালকে অদ্ভুত এ কবিরাজী চিকিৎসা সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলে নিজেকে তিনি কবিরাজ হিসেবে দাবি করে বলেন, তের বছর পূর্বে স্বপ্নের মাধ্যমে মন্ত্র পেয়ে কবিরাজি শুরু করে আসছেন। মাতু মিয়ার স্ত্রী প্রতারণার বিষয়টি অস্বীকার করে আরো বলেন, তিনি বিভিন্ন রোগের সমাধান খুঁজতে আসা মানুষদেরকে তেল পড়া, পানি পড়া, মালিশ, বন্ধ্যাত্ব দূরের ঔষধ দিয়ে থাকেন।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: