বন্দরে মালিবাগে ৩ চোরকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ


স্টাফ রিপোর্টারঃ বন্দরে মুছাপুর ইউপি’র ২নং ওয়ার্ডের আওতাধীন মালিবাগ মোল্লা মার্কেটে শুক্রবার গভীর রাতে চুরি করার সময় এক চোরকে হাতেনাতে ধরে এবং তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী আরও দুই চোরকে ধরে গণধোলাই দিয়ে বন্দর থানাধীন কামতাল তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছেন স্থানীয় জনতা। ধৃত চোর ১. দেলোয়ার (২৮), পিতাঃ শহীদুল্লাহ, মালিবাগ, বন্দর, নারায়ণগঞ্জ, ২. সোহেল (৩৫), পিতাঃ মৃত ওহাব মোল্লা, বক্তারপুর, পাংশা, রাজবাড়ী এবং ৩. শফিকুল, (৩০), পিতাঃ মতিউর রহমান, পাঁচানী, সোনারগাঁও, নারায়ণগঞ্জ। এর মধ্যে ২ ও ৩নং চোর স্থানীয় মালিবাগ এলাকার বিল্লালের বাড়ীর ভাড়াটিয়া বলে জানানো হয়েছে।

শুক্রবার সকালে ঘটনার বিবরণে কামতাল তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ এস আই আনোয়ার হুসাইন সাংবাদিকদের জানান, শুক্রবার রাত ১২টার পর চোরেরা উক্ত মার্কেটের সেলিমের মালিকানাধীন মুদি দোকানে চুরি করে মালামাল নিয়ে পালানোর সময় স্থানীয়রা বিষয়টি টের পেয়ে সবাইকে জড়ো করে চোরদের ধরে গণধোলাই দিয়ে আমাদেরকে জানায়। আমরা তড়িৎ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তাদেরকে আটক করে প্রথমে বন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তাদের প্রাথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থা করি এবং চিকিৎসা শেষে তাদেরকে তদন্ত কেন্দ্রে নিয়ে আসা হয়। মার্কেট কমিটির পক্ষ থেকে বা যার দোকানে চুরি হয়েছে তিনি বাদী হয়ে মামলা করতে পারেন, নতুবা বিধি অনুযায়ী তাদেরকে আজকেই আদালতে প্রেরণ করা হবে। উক্ত মার্কেটের বিসমিল্লাহ টেলিকম নামে একটি দোকানে গত ২ বছরে ৩ বার চুরি সংঘটিত হয়েছে বলে জানান দোকান মালিক।

তাছাড়া রাজ্জাক ও মোতালিবের দোকানেও চুরির ঘটনা ঘটেছে। উক্ত মার্কেটে নিয়মিত চুরি সংঘটিত হবার ঘটনা থেকে মুক্তি পেতে চোরদের উপযুক্ত শাস্তি দাবী করেছেন দোকান মালিকরা।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: