আড়াইহাজারে গণধর্ষণ ও ভিডিও ধারণ,প্রকাশ্যে ধর্ষিতাকে হুমকী

আড়াইহাজার প্রতিনিধি: নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে চার জন মিলে এক গৃহবধূকে গণধর্ষণ ও ধর্ষণের ভিডিও ধারন করে ব্ল্যাক মেইলের মাধ্যমে পুনরায় ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
ঘটনাটি ঘটেছে,৫ মে রবিবার রাত আটটার দিকে উপজেলার আড়াইহাজার পৌরসভাধিন মুকুন্দী এলাকায়।
জানাগেছে, ঘটনার দিন দিন মজুরের স্ত্রী (৩৫) রাত ৮টার দিকে দোকান থেকে সওদা আনার জন্য বাড়ি থেকে যাওয়ার পথে একই এলাকার সাহাদ আলীর ছেলে সেলিম (৩০), আঃ সালামের ছেলে মাঈনউদ্দিন(২৫),কফিলউদ্দিনের ছেলে সোহেল(২৭) ও নিজামউদ্দিনের ছেলে আবুল (২৬) তার গতিরোধ করে তার মুখ চাপা দিয়ে পাশের পুকুরপাড় ধান ক্ষেতে নিয়ে গিয়ে জোর পূর্বক পর পর চার জন মিলে গৃহবধূকে ধর্ষণ করে। ঐ সময় তাদের গণধর্ষণের ঘটনাটি মোবাইল দিয়ে ভিডিও করে রাখে। ঘটনার সময় গৃহবধূ অজ্ঞান হয়ে পরলে তাকে ঘটনাস্থলে ফেলে চলে যায় ধর্ষকরা।
পরে জ্ঞান ফিরলে রাতে গৃহবধূটি একাই বাড়িতে চলে আসে। পরে ঘটনার ব্যাপারে থানায় মামলা দেওয়ায় চেষ্টার করলে ধর্ষক ও তাদের লোকজন ধর্ষণের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করার হুমকী দেয়। সম্প্রতি ধর্ষষের সেই ভিডিওর হুমকী দিয়ে ধর্ষকরা পুনরায় অনৈতিক কাজের প্রস্তাব দিলে গৃহবধূটি ১৫ মে বুধবার চার ধর্ষকের বিরুদ্ধে আড়াইহাজার থানায় ধর্ষণের অভিযোগ দেয়।
থানায় ধর্ষকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দেওয়ার পর মামলা রেকর্ড না করার জন্য ধর্ষক ও স্থানীয় প্রভাবশালী মহল থানায় জোর তদবির ও ধর্ষিতাকে হুমকী দিয়ে বেড়াচ্ছে। ঐ মহলটি স্থানীয়ভাবে মিমাংসা করবে বলে মামলা নেওয়া থেকে পুলিশকে প্রভাবিত করছে।
ধর্ষিতা গৃহবধূটি অভিযোগ করেন,থানায় অভিযোগ দেওয়ার পর ও থানায় মামলা নেওয়া হয়নি বরং শুক্রবার বিচার হবে বলে আমাকে হুমকী দিচ্ছে।
আড়াইহাজার থানার ওসি আক্তার হোসেন জানান,অভিযোগের ভিত্তিতে ধর্ষকদের কাউকে গ্রেফতার করতে না পারলেও তাদের নিকটাত্মীয় নাজমুল হোসেন ও ইয়াকুব হোসেন নামে দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং তাদের বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: