দেশের মানুষ রাস্তায় নামলে পালানোর সুযোগ পাবেন না–সামসুজ্জামান দুদু


স্টাফ রিপোর্টার(নিউজ বন্দর ২৪) : কেন্দ্রীয় বিএনপির ভাইসচেয়ারম্যান সামসুজ্জামান দুদু বলেন, এদেশ শহীদ তিতুমীর, মাওলানা ভাষানীর দেশ ৭১ সালে দেশের গণতন্ত্র, বাকস্বাধীনতা, মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য পাকিস্থানীদের সাথে রনাঙ্গনে যুদ্ধ করে স্বাধীন করেছে। বর্তমান সরকারের সাথে পাকিস্থানীদের মধ্যে কি পার্থক্য রয়েছে। তারাও ক্ষমতায় এসে মানুষের বাকস্বাধীনতা, ভোটাধিকার, গণতন্ত্র হরন করে নিয়েছে। আর তাদের মূল হাতিয়ার হচ্ছে প্রশাসন। প্রশাসনের এখন সবচেয়ে বড় চোর পুলিশ। তারা আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় এনে বড় বড় ব্যাংক ও সরকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর মূল দায়িত্বে বসে দেশের টাকা লুট করে নিচ্ছে। আজকে প্রকৃত ব্যবসায়ীরা তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও গামেন্টস লস খেয়ে বিক্রি করে দিচ্ছে। আর সে গুলো ক্রয় করছেন তারা।

রোববার (২ জুন) জিয়ার ৩৮ তম শাহাদাত বার্ষিকী ও খালেদা জিয়ার রোগ ও কারাগার থেকে মুক্তির জন্য ইফতার ও দোয়া মাফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সাংসদ এ্যাড. আবুল কালাম এর সভাপতিত্বে নগরীর হোসিয়ারী সমিতি ভবনে অনুষ্ঠিত এ ইফতার ও দোয়া মাহফিলে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাড. আব্দুস সালাম আজাদ।

অনুষ্ঠানের স্বাগত বক্তব্য রাখেন, মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল।

এ সময় তিনি আরও বলেন, একটি তলা বিহীন রাষ্ট্রের দায়িত্ব নিয়ে সারা বিশ্বের কাছে সম্মানের সাথে তুলে ধরে বাচঁতে শিখিয়েছেন শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান। আজকে যারা মুক্তিযুদ্ধের কথা বলে ক্ষমতায় এসে নানা অপকর্ম করে বেড়াছেন, তাদের অনেকেই সে সময় যুদ্ধে অংশগ্রহন করেন নাই। যারা দেশের ইতিহাস থেকে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানকে পাশ কাটাতে চায়, তারা গণতন্ত্রকে পাশ কাটাতে চায়।

তিনি বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে যারা মিথ্যা অভিযোগ করছেন। তারা ক্ষমতায় বসে কি ধরনের দুর্নীতি করছেন আর সেটার বিচার কি হওয়া উচিৎ তা অংকে লিখে বুঝানো যাবে না। আজকে নির্বাচনের নামে যে অপকর্ম গুলো হচ্ছে তা এদেশের সবাই জানি। তাই এখনও সময় আসে ক্ষমতা ছেড়ে দিয়ে পুনরায় নির্বাচন দিন। নতুবা দেশের মানুষ রাস্তায় নামলে পালানোর সুযোগ পাবেন না।

প্রধান বক্তা হিসেবে এ্যাড. আব্দুস সালাম আজাদ বলেন, দেশ ও জাতির অধিকার আদায় করতে গিয়ে বেগম খালেদা জিয়া আজ সরকারের মিথ্যা মামলায় কারাগারে। আর তার কারাগারে থাকার একটাই কারন সরকারের ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনকে প্রতিষ্ঠিত করা। তারা বিএনপিকে এতোই ভয় পায় যে রাতের আধারে চুরি করে ব্যালট বক্স ভরে রেখে ছিলো।

তিনি আরও বলেন, ঢাকা মহানগর বিএনপির পরে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি একটি সুবিশাল সংগঠন। আপনারা সকলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে দল ও দেশর জন্য কাজ করুন।

মহানগর সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাড. আবু আল ইউসুফ খান টিপুর সঞ্চালনায়  বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সহ-সভাপতি এ্যাড. জাকির হোসেন, ফখরুল ইসলাম মজনু, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সবুর খান সেন্টু, সহ-সম্পাদক আওলাদ হোসেন, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জিয়াউর রহমান জিয়া, মহানগর শ্রমিক দলের যুগ্ম-আহবায়ক মনির মল্লিক, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা মাকিদ মোস্তাকিম শিপলু।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি আয়সা সাত্তার, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি আবুল কাউছার আশা, মহানগর ছাত্র দলের সভাপতি সাহেদ আহম্মেদ, মহানগর ছাত্র দলের সাধারণ সম্পাদক মমিনুর রহমান বাবু, মহানগর শ্রমিক দলের সদস্য সচিব আলী আজগর, যুগ্ম-আহবায়ক ফজলুল হক, জেলা বিএনপির মৎস বিষয়ক সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন প্রধান, মহানগর বিএনপি নেতা এ্যাড. রফিক আহম্মেদ, এ্যাড. মতিন প্রধান, এ্যাড. রিয়াজুল ইসলাম আজাদ, এ্যাড. আনিছুর রহমান মোল্লা, এ্যাড. শহীদ সারোয়ার, এ্যাড. সুমন মিয়া, জেলা মৎসজীবী দলের যুগ্ম-আহবায়ক শাহরিয়ার চৌধুরী ইমন, মানিক বেপারী সহ মহানগর বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: