আড়াইহাজারে হাত-পা বেঁধে এক বৃদ্ধাকে পুড়িয়ে হত্যা

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে বৃদ্ধা আমেনা খাতুন(৭০)কে হাত-পা বেঁধে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে,৪ মে শনিবার দিবাগত গভীররাতে উপজেলার কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়নের উলুকান্দী পূর্বপাড়া এলাকায় নিহতের নিজ ঘরে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানাগেছে, শনিবার রাতে দুর্বৃত্তরা আমেনা খাতুনের ঘরে ডুকে তার হাত-পা ও গলায় বেঁধে শরীরে আগুন দিয়ে হত্যা করে পালিয়ে যায়।
নিহত আমেনা খাতুন উলুকান্দী গ্রামের মৃত মোহাম্মদ আলীর স্ত্রী এবং একই এলাকার আঃ গফুরের মেয়ে। তার স্বামী মোহাম্মদ আলীর মৃত্যুর পর সে তার পিতার বাড়িতে বসবাস করতেন।
রোববার সকালে স্থানীয় লোকজনদের মাধ্যমে খবর পেয়ে কালাপাহাড়িয়া তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে পুড়ে অঙ্গার হওয়া আমেনা খাতুনের লাশ উদ্ধার করে নারায়ণগঞ্জ মর্গে প্রেরন করেন।
নিহত আমেনা খাতুনের একমাত্র মেয়ে আয়না বিবি জানান, রাত ৩টার দিকে তার মায়ের ঘরে আগুন দেখে পাশের বাড়ির মানিকের স্ত্রী খালেদা আক্তার চিৎকার দেয়। ঐ সময় আশেপাশের লোকজন এসে ঘরের দরজা ভেঙ্গে দেখতে পান তার মা আমেনা খাতুনের সারাশরীরে আগুন ঝলছে। লোকজন আগুন নেভাতে পারলেও আমেনা খাতুনকে বাঁচাতে পারেনি।

আয়না বিবি আরো জানান, ঘটনার সময় তার মায়ের ঘরটি ভিতর থেকে বন্ধ ও ঘরের ভেলকি খোলা পাওয়া যায়। তার মায়ের শরীরে স্বর্ন ও রূপার অলংকার ছিল যা এখন পাওয়া যাচ্ছেনা।
কালাপাহাড়িয়া তদন্তকেন্দ্রের ইনচার্জ বিজয় কুমার কর্মকার জানান, শনিবার দিবাগত গভীর রাতে দুর্বৃত্তরা আমেনা খাতুনের ঘরে ডুকে তার হাত-পা ও গলায় মশারীর কাপড় দিয়ে বেঁধে তার সারা শরীর কাপড় পেচিয়ে শরীরে আগুন দিয়ে থাকতে পারে। তিনি আরো জানান, মাঝে মধ্যে বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন এ বাড়িতে আসত বলেও জানা যাচ্ছে।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত কাউকেই গ্রেফতার করতে পারেনি।
আড়াইহাজার থানার ওসি আক্তার হোসেন জানান,খবর পেয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ ব্যাপারে মামলা হচ্ছে বলেও তিনি জানান।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: